অনলাইন থেকে আয় করার সহজ ৬টি উপায়

Earn Money Online 6 Easy Ways

0 ২,৭৬২

অর্থ উপার্জন (Earning) সাধারণত ঐতিহ্যবাহী ‘অফলাইন’ রাস্তার সাথে সম্পর্কিত এবং সীমাবদ্ধ। ইন্টারনেট আমাদের জীবনের একটি বড় অংশ দখল করে নিয়েছে। অধিকাংশ মাধ্যমিক আয়ের  লোক আর্থিক প্রবাহ বাড়ানোর জন্য অনলাইনে অর্থ উপার্জনের ( earn money online ) উপায়গুলি সন্ধান করছে।

আপনি যে প্ল্যাটফর্মটি পছন্দ বা গ্রহণ করেছেন সে সম্পর্কে আপনার মনোযোগ থাকা উচিত। অনলাইনে অর্থ উপার্জনের ( earn money online ) অসংখ্য উপায় থাকা সত্ত্বেও এর কয়েকটি জাল হতে পারে। এছাড়াও, অর্থ উপার্জনের (Earning) জন্য অনলাইন সুযোগগুলি ব্যবহার করার সময় দ্রুত একটি বিশাল পরিমাণে আয় করার আশা করবেন না।

বাড়ীতে কারও বেশি সময়  বা কারও কারও জন্য সময় কম থাকতে পারে। সময় যেমনই হোক না কেন  এখানে কয়েকটি অনলাইন প্ল্যাটফর্ম, ওয়েবসাইট এবং সরঞ্জাম উল্লেখ করা হলো যা আপনাকে অনলাইনে অর্থ উপার্জনে ( earn money online ) সহায়তা করতে পারে।

 

১.  ফ্রিল্যান্সিং ( Freelancing )

ইন্টারনেটে বিভিন্ন বিকল্পের উপায়ের মধ্যে অনলাইনে অর্থ উপার্জনের ( Online Money Earning ) জন্য ফ্রিল্যান্সিং ( Freelancing ) সর্বদা একটি জনপ্রিয় উপায়। বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইট রয়েছে যা ভিন্ন ভিন্ন দক্ষতা আছে এমন লোকদের জন্য ফ্রিল্যান্স টাস্ক অফার করে। আপনাকে যা করতে হবে তা হ’ল একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে, তালিকাগুলির মাধ্যমে ব্রাউজ করতে হবে এবং আপনার জন্য উপযুক্ত কাজের আবেদন করতে হবে। কিছু ওয়েবসাইটে  আপনার স্কিলসেটের বিস্তারিত সহ একটি ব্যক্তিগত প্রোফাইল তালিকা তৈরি করার প্রয়োজন হতে পারে, যাতে আগ্রহী ক্লায়েন্টরা সরাসরি আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে। এমন কিছু ওয়েবসাইট Outfiverr.com, upwork.com, freelancer.com, and worknhire.com যা ফ্রিল্যান্স জব সরবরাহ করে থাকে। আপনি এই ওয়েবসাইটগুলির মাধ্যমে $৫ ডলার থেকে শুরু করে যে কোন পরিমান অর্থ  উপার্জন করতে পারবেন।

 

২. ব্লগিং ( Bloging )
অনলাইন এ আয়ের অন্যতম পথ হলো ব্লগিং ( Bloging )। এজন্য আপনার একটি ওয়েবসাইট লাগবে। ওয়েবসাইটের অনলাইনে পর্যাপ্ত উপাদান রয়েছে। এর মধ্যে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য ডোমেন, টেমপ্লেট, লেআউট এবং সামগ্রিক নকশা নির্বাচন করা অন্তর্ভুক্ত। একবার প্রাসঙ্গিক বিষয়বস্তু দিয়ে দর্শকদের পরিষেবা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে গেলে, গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য সাইন আপ করুন, যখন আপনার ওয়েবসাইটে উপস্থিত হয় এবং দর্শকদের দ্বারা ক্লিক করা হয়, আপনাকে অর্থোপার্জনে সহায়তা করে। আপনি আপনার ওয়েবসাইটে যত বেশি ট্র্যাফিক পাবেন, তত বেশি আয়ের সম্ভাবনা তত বেশি।

ব্লগিং  ( Bloging ) সাধারণত শখ, আগ্রহ এবং আবেগ দিয়ে শুরু হয় এবং শীঘ্রই ব্লগিং ( Bloging ) অনেক ব্লগারদের ক্যারিয়ারে  অর্থ উপার্জন (Earning) -এর বিকল্পে পরিণত হয়। অনেক ব্লগার রয়েছে যারা শুধুমাত্র ব্লগিং ( Bloging ) করে জীবিকা নির্বাহ করে। ব্লগ শুরু করার দুটি উপায় রয়েছে;  আপনি হয় ওয়ার্ডপ্রেস বা টাম্বলারের মাধ্যমে একটি ব্লগ তৈরি করতে পারেন, যার জন্য কোনও বিনিয়োগের প্রয়োজন নেই, বা  একটি  নিজস্ব-হোস্টেড ব্লগের জন্য হতে পারেন।

নিজস্ব-হোস্ট করা ব্লগগুলির একটি অতিরিক্ত সুবিধা রয়েছে যা আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের উপাদান এবং কার্যকারিতা কাস্টমাইজ করতে দেয়।  পরিষেবা সরবরাহকারীর মাধ্যমে উপলব্ধ সরঞ্জাম ও প্লাগ-ইনগুলির ব্যবহারে কাস্টমাইজ সহজ হয়।

আপনি বিজ্ঞাপনগুলি, পণ্য পর্যালোচনা ইত্যাদির মাধ্যমে ব্লগগুলি পর্যবেক্ষণ করতে পারেন। তবে মনে রাখবেন, ব্লগিংয়ের মাধ্যমে উপার্জন করতে অনেক সময় এবং প্রচেষ্টা লাগে। কারও কারও কাছে ব্লগিংয়ের মাধ্যমে আসলে আয় করতে বছর পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।

 

 

 

 

৩. লিংক শর্টার/ Link shortener

সুপ্রিয় পাঠক,আপনি যদি দ্রুত টাকা আয় করতে চান তাহলে এই ওয়েবসাইট থেকে লিংক শর্ট করে বন্ধুদের সঙ্গে ফেসবুক হোয়াটস্যাপ এ শেয়ার করুন।

এই সাইট টি হচ্ছে লিংক Shortener ওয়েবসাইট, এখান থেকে যেকোনো লিংক ডাইভার্ট হয়ে প্রথমে ভিউয়ার এড দেখে তারপর গন্তব্যে যায়, এই প্রক্রিয়ায় সেই এড থেকে আপনার কিছু পয়সা আর্নিং হয়।

আপনার যদি কোন ব্লগ বা ইউটিউব চ্যানেল অথবা ফেসবুক পেজ থাকে তাহলে আপনি এই সাইট থেকে লিংক ডাইভার্ট করে ভালো পরিমানে আয় করতে পারবেন।

আর যদি আপনার কোন কিছু না থাকে তাহলে আপনি জাস্ট ফ্রেন্ডদের এই সাইট এ সাইন আপ করিয়ে  প্রতি জনে (referral) $৫ পাবেন।

তাহলে বন্ধুরা, দেরি না করে এখোনি সাইন আপ করুন এবং নিজের রেফারাল লিঙ্ক দিয়ে বন্ধুদের সাইন আপ করান।

প্রত্যেক সাইন আপ করার পরিবর্তে আপনার একাউন্ট এ $৫ ঢুকে যাবে এই এমাউন্ট আপনি পেপালের মাধ্যমে তুলতে পারবেন। নিচে লিংক দেওয়া হল-

Adshrink.it – একাউন্ট খুলুন 

 

৪. ভার্চুয়াল সহকারী ( Virtual assistantship / VA )

কারও বাড়ি থেকে সমস্ত কর্পোরেট স্টাফদের সাথে যোগাযোগ ও নিয়ন্ত্রন করা ভার্চুয়াল সহকারী ( Virtual assistantship / VA) মূল কাজ।  VA মূলত তাদের ক্লায়েন্টদের সাথে দূরবর্তী থেকে কাজ করে। তাদের ব্যবসায়ের এমন দিকগুলি পরিচালনা করে যা তারা নিজে খুব ব্যস্ততার কারণে পরিচালনা করতে পারে না , তখন আপনি ভার্চুয়াল সহকারী ( Virtual assistantship ) হিসাবে কাজ করে, অথবা আপনি কোনও কর্মচারী হিসাবে কাজ করে বা আপনার নিজের ব্যবসা সেট আপ করতে পারেন।

VA  হ’ল দক্ষ, গৃহ-ভিত্তিক পেশাদার যারা সংস্থা, ব্যবসায় এবং উদ্যোক্তাদের প্রশাসনিক সহায়তা দেয়। কাজের কিছু বড় ক্ষেত্রগুলির মধ্যে রয়েছে ফোন কল করা, ইমেল চিঠিপত্র, ইন্টারনেট গবেষণা, ডেটা এন্ট্রি, সময়সূচী অ্যাপয়েন্টমেন্ট, সম্পাদনা, লেখা, বই রক্ষণ, বিপণন, ব্লগ পরিচালনা, প্রুফরিডিং, প্রকল্প পরিচালনা, গ্রাফিক ডিজাইন, প্রযুক্তি সহায়তা, গ্রাহক পরিষেবা, ইভেন্ট পরিকল্পনা, এবং সামাজিক মিডিয়া পরিচালনা।

VA  হওয়ার জন্য আপনার যোগ্যতার উপর নির্ভর করে কিছুটা প্রশিক্ষণ বা ব্রিফিংয়ের প্রয়োজন হতে পারে। তবে, যদি আপনি ভাল যোগাযোগের দক্ষতা অর্জন করেন এবং MS Office-এর মতো অ্যাপ্লিকেশনগুলি ব্যবহার করতে সক্ষম হন তবে আপনি উল্লেখিত সাইটগুলোতে সাইনআপ করতে পারেন Elance.com, 24/7 Virtual Assistant, Assistant Match, eaHelp, Freelancer, FlexJobs, People Per Hour, Uassist.Me, Upwork, VaVa Virtual Assistants, Virtual Staff Finder, Worldwide 101, Ziptask, Zirtual প্রভৃতি।

 

৫.ইউটিউব ( YouTube )

আপনি যদি ব্লগ এবং লেখার বিষয়বস্তুর মাধ্যমে আপনার চিন্তাভাবনাগুলি প্রকাশের ক্ষেত্রে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ না করেন তবে ভিডিও উপস্থাপনা তৈরি করতে আপনার ক্যামেরাটি  ব্যবহার করুন ।  আপনার  ইউটিউব  ( YouTube )  চ্যানেল তৈরি করুন, ভিডিও আপলোড করুন এবং তাদের পর্যবেক্ষণ শুরু করুন। আপনি এমন একটি বিভাগ বা বিষয় নির্বাচন করুন যা নিয়ে আপনি ভিডিও তৈরি করতে এবং শুরু করতে চান।তবে নিশ্চিত হন যে এটি এমন একটি বিষয় হয় যা অনেক লোকে দেখতে আগ্রহী হবে। কুকি শো থেকে শুরু করে রাজনৈতিক বিতর্ক সব কিছুরই ইউটিউবে অনেক দর্শক আছে। আপনাকে একটি ইউটিউব ( YouTube ) চ্যানেল তৈরি করতে হবে, যা ব্লগের মতো একই মডেলে কাজ করে। যখন আপনি আপনার চ্যানেলকে জনপ্রিয় করবেন, তখন আপনার চ্যানেলে গ্রাহকের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবেএবং আপনার উপার্জনের সম্ভাবনাও বাড়বে। প্রতি হাজার দর্শনের  ভিত্তিতে অর্থ প্রদানের একটি পেমেন্ট করা হয়।

 

৬. সমীক্ষা এবং অনুসন্ধান  ( Surveys and searches)

শিক্ষার্থীদের অর্থোপার্জনের একটি ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয় উপায় হ’ল তাদের অতিরিক্ত সময় অনলাইন সমীক্ষা পূরণ বা সার্ভে করা। গবেষণা সংস্থাগুলি সর্বদা জরিপের জবাব এবং নতুন পণ্য পরীক্ষা করার জন্য বিশ্বব্যাপী নতুন সদস্য নিয়োগ করে থাকে।

কয়েক মিনিটের মধ্যে ফর্ম পূরণ করে, আপনি কয়েকটা কুইড  করে নগদ অর্থ বা পুরষ্কার উপার্জন করতে পারেন। কিছু জরিপের জন্য আপনি £ ৩ ($ ৫) অবধি আয় করতে পারেন!

ভাল কয়েকটি  হল: Toluna, Branded Surveys, LifePoints, InboxPounds, Onepoll, i-Say, Opinion Outpost, YouGov, Pinecone, SurveyBods, Panel Base, Valued Opinions, The Opinion Panel, Prizerebel, Opinion Bureau, Marketagent, Survey Junkie, ইত্যাদি।

এছাড়াও Swagbucks সাইন আপ করুন যা সমীক্ষার পাশাপাশি আপনাকে কেবল ওয়েব সার্ফিং, ভিডিও দেখা এবং গেমস খেলার জন্য পুরষ্কার দেয়।

আপনি অনলাইনে নগদ অর্জনে আগ্রহী? আপনার কোনও প্রচেষ্টা বা পরিবর্তন ছাড়াই অনলাইনে অর্থোপার্জনের অন্যতম সহজ পদ্ধতিতে কাজ হবে।

qmee.com এই উদ্ভাবনী ধারণাটি আপনাকে google, bing, yahoo, amazan এবং ebay-তে অনুসন্ধান করার জন্য নগদ অর্থ পুরস্কৃত করে। আপনি কেবল আপনার ব্রাউজারে একটি সাধারণ add-on ইনস্টল করে যখন আপনি কোনও অনুসন্ধান পরিচালনা করেন তখন আপনার সাধারণ অনুসন্ধানের পাশাপাশি কয়েকটি স্পনসরড ফলাফলও দেখাবে।

প্রতিটি qmee’র ফলাফলের সাথে নগদ পুরষ্কার  থাকে – আপনি যদি এটিতে আগ্রহী হন তবে কেবল  ক্লিক করুন এবং আপনার পুরষ্কার সংগ্রহ করুন।

সর্বোত্তম জিনিসটি হ’ল নগদ করণের বা cashout এর কোনও ন্যূনতম মান্দন্ড নেই।

বিনামূল্যে সাইন আপ করুন এবং আপনার নিজের অনুসন্ধান থেকে উপার্জন শুরু করুন! এখানে ক্লিক করুন

 

 

 

*** বোনাস (ফ্রী লাইট কয়েন )
এখন যে সাইটের কথা বলবো তা এই আর্টিকেলের জন্য বোনাস। আর হ্যাঁ এই লিংক এ ক্লিক করে এখনই সাইন আপ করে বিনা পুঁজিতে আয় শুরু করেদিন। এই সাইটিটি হচ্ছে ক্রিপ্টোকারেন্সি সাইট। 
কি এই ক্রিপ্টোকারেন্সি ?
ক্রিপ্টোকারেন্সি এক ধরনের সাংকেতিক মুদ্রা বা এক রকমের ডিজিটাল কারেন্সি।। যার কোন বাস্তব রূপ নেই। এর অস্তিত শুধু ইন্টারনেট জগতেই আছে। এটি ব্যবহার করে লেনদেন শুধু অনলাইনেই সম্ভব। যার পুরো কার্যক্রম ক্রিপ্টগ্রাফি নামক একটি সুরক্ষিত প্রক্রিয়ায় সম্পন্ন হয়। ২০১৭ সাল থেকে এটি একটি উঠতি মার্কেটি পরিণত হয়েছে।
ফ্রী লাইট কয়েন  নামক এই সাইটে সাইন আপ করে সাথেসাথেই ক্রিপ্টোকারেন্সি আয় শুরু করা সম্ভব।  এখানে multiply করে, লটারীতে অংশ নিয়ে, রেফার করে রেফারের  ৫০%, পর্যন্ত আয় করা সম্ভব। প্রতি ঘন্টাতে চরকা ঘুরিয়ে আয় করা যায়।  তাই দেরী না করে এখনই কোন প্রকার বিনিয়োগ ছাড়া আয় শুরু করুন ফ্রী লাইট কয়েন  এ। 

 

 

উপরে উল্লেখিত প্রতিটি উপায় পরীক্ষিত। অনলাইন এ অর্থ উপার্যনের জন্য যে কোন পন্থার একটি অবল্বন করলে অর্থ উপার্যন সম্ভব। তবে এক্ষেত্রে অধ্যাবসায় অত্যাবশ্য়ক। অধ্যাবসায় ছাড়া কোন কাজেই সফলতা সম্ভব নয়। 

Hits: 0

Comments
Loading...