Hits: 0

খিলাফাহ’র পথে বাংলাদেশ

0

খিলাফাহ’র পথে বাংলাদেশ!

গনতন্ত্রপন্থি ইসলামিস্টরা চাচ্ছিল হারাম পন্থায় ইসলামি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে। তাদের এ কুটচাল বানচাল করে দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রি শেখ হাসিনা। তার পিতা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি শেখ মুজিবুর রহমানেরও স্বপ্ন ছিল একটি ইসলামি খিলাফাহ’র। আস্তে আস্তে তিনি সেপথে অগ্রসর হচ্ছিলেনও। সে পরিকল্পনা অনুযায়ি হারাম গনতান্ত্রিক পদ্ধতি নিষিদ্ধ করে তিনি বাকশাল চালু করেন। মদ ও জুয়াকে হারাম ঘোষণা করেন। ভারতের বিরোধিতা সত্ত্বেও ওআইসিতে যোগদান করেন। ইসলামি ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা ও বিশ্ব ইজতেমার জন্য জায়গা বরাদ্দ করেন। এখন শুধু বাকি ছিল খিলাফাহ’র ঘোষণার। ঠিক এই সময় কুচক্রি ইহুদি-নাসারা এবং ভারতের র মিলে তাকে হত্যা করল। তার পরে অন্য কেউ যেন খলিফা না হতে পারে এ জন্য পরিবারের পুরুষ সদস্যদেরও হত্যা করল। এর পুরস্কারস্বরূপ ওই হত্যাকান্ডের পর গঠিত সরকারকে ভারতীয় দুতাবাসে সংবর্ধনা দেয়া হল। আর হত্যাকারিদের ইউরোপ-আমেরিকার ভিসা দেয়া হল। তারা ভেবেছিল, এভাবে বাংলার জমিনে খিলাফাহ প্রতিষ্ঠা রুখতে পারবে। কিন্তু তারা জানত না, বঙ্গবন্ধুকন্যা এখনও জীবিত আছেন। বঙ্গবন্ধুর রক্ত তার শরীরে বহমান। দেশে ফিরে পিতার আজন্মলালিত স্বপ্ন বাস্তবায়নে তিনি আস্তে আস্তে কাজ শুরু করেন। দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর তিনি মদিনা সনদ অনুযায়ি দেশ পরিচালনা করতে লাগলেন। হারাম পদ্ধতিতে ইসলাম প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখা ইসলামিস্টদের জেলে পুরলেন। বিটিভিতে প্রতি ওয়াক্তে নামাজের সময়সুচি প্রচারের উদ্যোগ নিলেন। দুই বামপন্থিকে হজে পাঠালেন। দেওবন্দের শায়খদের ভিসা প্রাপ্তি সহজ করে দিলেন। এক নিঃস্ব ব্যবসায়ি আনিসুল হককে মেয়র পদে মনোনয়ন দিলেন। খিলাফাহ’র সব আয়োজন এখন সম্পন্ন। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য নাতি ক্রাউন প্রিন্স সজিব ওয়াজিদ জয়কে খলিফা ঘোষণা দিয়ে বাংলার জমিনে খিলাফাহ’র ঘোষণা এখন শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র।

বাংলার মুসলমান! ‘আল মামলাকাতুল বানগালিয়্যাতুল মুজিবিয়্যা’তে স্বাগতম! খুব তো হা-হুতাশ করতা খিলাফাহ’র জন্য। এবার সেই খিলাফাহ উপস্থিত! নতুন খলিফাকে বাইয়াহ দাও, তার অধিনে ফিলিস্তিন যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হও! অন্যথায় ইসলামি আইন অনুযায়ি বাগী/খারেজি’র নির্ধারিত শাস্তির জন্য প্রস্তুত হও!:)

collected form Fb

Hits: 0

Comments
Loading...