আত্নসম্মান না শ্রুতিমধুর ব্যবহার!

মানুষ সবথেকে বেশি সচেতন তার আত্নমর্যাদার দিকে। সেখানে এতটুকু ছোয়া লাগানো যাবেনা। শিক্ষিত সমাজে এই রোগে ভুক্তভোগীর সংখ্যা তুলনামূলক বেশী।
তাই সেক্ষেত্রে যদি শিক্ষিত বলা হয় তাহলে অক্ষরবিদ্যা রপ্ত শিক্ষার্থী থেকে নিরক্ষর কিছু কিছু মানুষ বেশি শিক্ষিত!
অক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন সমাজের আত্নসম্মানের মাত্রা একটু বেশিই তুংগে থাকে, তারা সর্বদা খেয়াল রাখে অমুক কলিগকি তাকে ইগনোর করলো! অমুক আত্নীয়ের শিক্ষাগত যোগ্যতাকি তার থেকে বেশি হয়ে গেল? অক্ষরজ্ঞানহীনদের এই চাপ থাকেনা।
একবার মাদাম কুরি যে চার্চে সেবিকার কাজ করতেনন,তারই এক সার্ভেন্ট তাকে জিগেস করলেন – তুমি তোমার বোনের কাজগুলো কেন করতে যাও ? তুমি এই চার্যে সেবিকার কাজই বা কেন কর? তুমি চাইলেই পেট চালানোর জন্য অনেক ধনী কাউকে খুজে নিতে পারতে? তোমার আত্নমর্যাদা বাড়ানো উচিত এটা ভাবা উচিত তুমি একটি গবেষনার কাজ করছো! যেটা সফল হলে পৃথিবীখ্যাত হবে। তখন তোমার নামের সাথে দাসী লেখা থাকবে।
কুরি উত্তর করলেন – আমার বোনকে সাহায্য করাই আমার আত্নসম্মান, আর আমার রোজগারের জন্য সেবিকা হওয়াটাও অনেক বড় আত্নমর্যাদা ।
অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ একশ মনিষীর জীবনী লেখার সময়কালে গবেষকদল যখন হন্য হয়ে সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষকে / মনীষীকে খুজছেন তখন তারা মুহাম্মাদ(সা:) কেই প্রথমে রাখলেন। কেন? উত্তরে তারা একটি কথা প্রথমেই বললেন তাহল “সবথেকে শ্রতিমধুর ব্যবহারের অধিকারী।”
ডেল কার্নেগীকে তার এক সহৃদয় বন্ধু জিগেস করলেন তুমি কেন এত নিশ্চিত থাকতে পার সব ব্যাপারে? কার্গেনী হাসি দিয়ে উত্তর করলেন মানুষের দুশ্চিন্তার ষাটভাগ কমে যেত সে যদি মাফ করতে শিখতো আর একশ ভাগ দুর হযয়ে যেত যদি শ্রুতিমধুর ব্যবহার করতে পারত সর্বদা ।
নবী(সা:) জিগেস করা হল ঈমান কি? উত্তরে বললেন “ধৈর্য ও নম্র ব্যবহার।”
“তুমি এমনভাবে তোমার দিনটাকে শেষ করো যেন তোমার মনে কারো বিরুদ্ধে কোন বিতৃষ্ণা, বিদ্দেষ , অভিযোগ না থাকে এবং অন্য কারোও মনেও তোমার প্রতি কোন বিদ্বেষ না থাকে।”
আর আমাদের অবস্থা ইগো; আত্নসম্মানকে সাজগোজ করাতেই বেশি ব্যস্ত। মাফ করে দেওয়াতে অনভ্যস্ত হয়ে পরেছি। অন্যের ক্ষেত্রে সহমর্মিতা দেখানোর ক্ষেত্রে চিন্তা করে দেখি ইগোতে লাগবেনাতো? নরম মন -মানসিকতাকে বিদায় জানিয়েছি অনেক পূর্বেই। প্রিয়জন থেকে শুরু করে অপরিচিতজন সবার সাথেই আমরা এই সম্মান স্টেপটা মেইনটেইন করে চলি, মনে হয় যেন একটা ফরজ পালন করে চলছি।

আত্নসম্মান না শ্রুতিমধুর ব্যবহার! আত্নসম্মান না শ্রুতিমধুর ব্যবহার! Reviewed by বায়ান্ন on April 12, 2016 Rating: 5

No comments:

Powered by Blogger.